সোমবার, ৮ জুলাই, ২০১৯

সেই রামদা খুঁজে বের করে দিল রিফাত ফরাজি

সোমবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজ ক্যান্টিনের পূর্বাঞ্চল থেকে বরগুনা রমজানে গ্রেপ্তারকৃত রিফাত শরীফকে উদ্ধার করা হয়। রাইফাত শরীফে প্রকাশ্যে রাইফাত শরীফ!

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মো: হুমায়ূন কবির জানান, সকালে রাইফাত ফাজাজির সঙ্গে তার ডুবে রমজান উদ্ধার করা হয়।

এদিকে, রাইফেল শরীফকে হত্যার দায়ে ৪টার দিকে আরিয়ান শ্রাবান নামে একজন ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। বরগুনা বাজারের রাস্তায় তাঁর বাড়ি। মো: ইউনূস সোহাগের ছেলে ওসি (তদন্ত) 

এ ক্ষেত্রে পুলিশ এই মামলায় ১১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। বন্দুকযুদ্ধে প্রধান আসামি নয়ন বন্ডকে হত্যা করা হয়। এ ছাড়াও তিন আসামিসহ ৬জন ব্যক্তিকে হত্যা মামলায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে এবং ১৬৪ধারায় বিবৃতি দিয়েছে। বাকি চারজনকে রিমান্ডে নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে।
বরগুনা এমপি শম্ভু দেবনাথের ছেলে সুনাম দেবনাথ এই নৃশংস হত্যার মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ার উপর একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন যা পাঠকদের পক্ষে ন্যায্য।


প্রথমে আমরা স্পট নাম পাবেন, কারণ আমরা বিভ্রান্ত। এই ঘটনায় দুইজন ব্যক্তির বাবার নাম ছিল, নিহত ছেলেটির নাম রিফাত শরীফ, বাবার নাম দুলাল শরীফ, সুং নূর ইউনিয়ন। 

রাইফাত প্রায় ২০টি মোবাইল ফোন ও ল্যাপটপ হাইজ্যাক করেছে, কিছু ছাত্রকে ডা। আলাউদ্দিনের ডি কে পি রোডের ভাড়াটে বাড়ীতে ভাড়া দেওয়া হয়েছিল, এরপর ওসি রিয়াজের জিজ্ঞাসাবাদে রাফিয়াট ফাজাজির বাবা থেকে সব মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছিল। তারা অপহরণকারীর কাছ থেকে অন্য সময়ে মোবাইল ফোন এবং ল্যাপটপ অপহরণ করতেও ব্যবহার করত।
এমন অনেক ঘটনা ঘটেছে, যা শেষ হবে না।

বর্তমান ঘটনার রিপোর্টে প্রথম (তারিকুল) ছেলেটির গল্পটি ফেসবুকে লিখেছে, "যদি আজ আমার মামলাটি ২০১৭সালে বিচার করা হয়, তাহলে রিফাত মারা যাবে না।" আমরা এখন কতটা গুরুত্বপূর্ণ লেখা বুঝতে পারি।


রিয়াত শরীফ আমাদের ছোট ভাই ও কর্মী ছিলেন, এখন আমরা সংসদীয় নির্বাচনের জন্য প্রচারণা চালাচ্ছি। রিফাতের মৃত্যুর খবর খুব খারাপ মনে হচ্ছে! কিন্তু এই খুনের পিছনে অনেক রহস্য রয়েছে। আজকের নায়কদের বিভিন্ন সংবাদ ও প্রচার মাধ্যম তৈরি করা হচ্ছে, তারা আজ পর্যন্ত রাইফাত শরীফের বন্ধু থেকে আসল ভিলেন হতে পারে, এটা জানা যায় যে এটি বোধগম্য। একটু সময় আছে, হয়তো এটা আরো স্পষ্ট হবে।

শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios:

ধন্যবাদ আপনার সচেতন মন্তব্যের জন্য।