রবিবার, ৭ জুলাই, ২০১৯

উখিয়া চাকরি মেলা নিয়ে হতাশা, ক্ষোভ প্রহসনের অভিযোগ


উখিয়াতে উচ্চ প্রত্যাশিত চাকরি মেয়ের উপর নতুন উদ্বেগ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। সামাজিক প্রচার মাধ্যমের তীব্র প্রতিক্রিয়া চলছে। উত্তেজিত বিক্ষোভকারীরা বলছেন, তারা কী করতে হবে তা নির্ধারণের জন্য জরুরি বৈঠক করবেন।

স্থানীয় জনগণের অগ্রাধিকার দাবিতে দীর্ঘ আন্দোলনের পর জেলা প্রশাসন একটি চাকরি সংগঠিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অনেক কল্পনার পর, অতীতে চাকরি মেলা আয়োজন করেছিল, কিন্তু কোনও পছন্দসই প্রভাব ছিল না। দরিদ্রদের প্রত্যাশা পূরণ হয়নি। চাকরি মেলার নামে স্থানীয় লোকেদের প্রতারণা করা হয়েছে বলে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। যাইহোক, জেলা প্রশাসন দাবি করে যে মেলা সফল হয়েছে। মেলা বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক ও অতিরিক্ত উপ কমিশনার (রাজস্ব) মো। আশরাফুল আফসার জানান, মেলা মাসে ৫ হাজার চাকরির আবেদনকারী অনলাইনে নিবন্ধিত হয়েছে। এখান থেকে ৩১৮ জনকে চাকরির জন্য মনোনীত করা হয়েছে। তিনি বলেন, বাকিরাও পর্যায়ক্রমে নিয়োগ পাবে। প্রতিকূল আবহাওয়া সত্ত্বেও, তিনি দাবি করেন যে চাকরি মেলা ১০০ শতাংশ সফল।

এডিসি আশরাফুল আফসার ১০০% সফল চাকরি পেয়েছেন, কিন্তু চাকরি মেলায় কোন সাফল্য দেখা যায় না, শত শত শিক্ষিত শিশু চাকরি পেতে প্রত্যাশিত। চাকরি মেলায় আশাব্যঞ্জকভাবে হতাশ হলেন বুকভর্ল, শিক্ষিত শিশুদের একটি বড় অংশ তাদের দাবি, তারা চাকরির নামে কাজ করে। মেলার মধ্যে এ, বি, সি বিভাগের চাকরির জন্য স্থানীয়দের রাখা হয়নি। স্বেচ্ছাসেবক স্তরের শিশুদেরই নেয়া হয়েছে, যাদের বেতন ১৪/১৫ হাজার রুপি বেশি নয়। রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে কাজরত এনজিও এবং এনজিওগুলিতে দক্ষ এবং উপযুক্ত কাজ করার জন্য নিবন্ধিত শিশুদের অনেক যোগ্য প্রার্থী রয়েছে। কিন্তু তারা কোন প্রশাসনিক এবং সম্মানিত অবস্থান গ্রহণ করা হয় নি।
সম্মান স্নাতকোত্তর পাস চাকরির আবেদনকারী বলেন, এটি একটি খ্যাতি এবং কাজের মেলা নামে সংগঠিত লোক শো। অতিরিক্ত কাজ, কম বেতন, অগ্রাধিকার এবং অসুবিধা হিসাবে চাকরির জন্য যারা পাওয়া যায় না, এই পোস্টে লোকেদের নিযুক্ত করা হয়েছে।

তথ্য অধিকার কমিটির সভাপতি উকিয়ায়ার আহ্বায়ক শরীফ আজাদ বলেন, আন্দোলনের মুখে আন্দোলনকে জোরপূর্বক কাজ করার জন্য বাধ্য করা হয়েছে, যা সাফল্য। কিন্তু মেলা থেকে কোন পছন্দসই ফলাফল ছিল না। তাদের প্রত্যাশা পূরণ করা হয় নি। তারা বললো, তারা ভলান্টারীয়ার সার্ভিসের জন্য অগ্রসর হয়নি, কিন্তু উখিয়া-টেকনাফে শত শত যোগ্যতাসম্পন্ন শিশু ছিল, কিন্তু প্রশাসনিক পর্যায়ে তাদের মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। সব মধ্যে রাগ আছে।


গতকাল শনিবার উখিয়া হাই স্কুল গ্রাউন্ডে কর্মশালা ও দক্ষতা উন্নয়ন মেলা অনুষ্ঠিত হয়। উখিয়া-টেকনাফে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় গ্রহণের কারণে এনজিওগুলিকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চাকরি প্রদানের জন্য এই কাজ মেলার আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসন এই মেলার আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো। কামাল হোসেন মো। অনুষ্ঠানে এনজিও ব্যুরো মহাপরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব কে এম আবদুস সালাম উপস্থিত ছিলেন। বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, অতিরিক্ত রোহিঙ্গা শরণার্থী রেফিউজি কমিশনার মোজাম্মেল হক, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ অ্যাডভোকেট সিরাজুল মুস্তফা এবং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এনজিওর সমন্বয়কারী জেনারেল প্রফেসর মুজিবুর রহমান অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। ইন্টার-কো-অর্ডিনেটর গ্রুপের (আইএসজি) সমন্বয়কারী মিস নিকোল এপপিং, উকিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রফেসর হামিদুল হক চৌধুরী ও উখিয়া নির্বাহী কর্মকর্তা মো। নিকরুজ্জামান চৌধুরী বক্তব্য রাখেন।

রোহিঙ্গা শিবির কর্মরত বিভিন্ন এনজিওতে ৩১৮ জনকে চাকরি দেয়া হয়েছে বলে জেলা প্রশাসক মো। এ ছাড়াও এনজিওদের জন্য ৩ হাজারেরও বেশি প্রার্থী চাকরির জন্য অনলাইনে আবেদন করেছেন। পরে, অভিযোজন প্রোগ্রাম এবং কর্মশালার দক্ষতা বৃদ্ধি করে আবেদনকারীদের কাছ থেকে একটি ধীরে ধীরে ব্যবস্থা থাকবে।

অধিকার বাস্তবায়ন কমিটি, উখিয়ার আহবায়ক শরীফ আজাদ জানান, আন্দোলনের মুখে চাকরি মেলা করতে বাধ্য হয়েছে, এটাই সফলতা। কিন্তু মেলা থেকে কাঙ্খিত ফলাফল আসেনি। তাদের প্রত্যাশারও পূরণ হয়নি। ভোলান্টিয়ার চাকরির জন্য তারা আন্দোলন করেননি জানিয়ে বলেন, উখিয়া-টেকনাফে শত শত যোগ্যতা সম্পূর্ণ দক্ষ ছেলেমেয়ে থাকলেও প্রশাসনিক লেভেলের একটি পদের জন্যও তাদের মনোনীত করা হয়নি। যা নিয়ে সবার মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে

চাকরি ও দক্ষতা উন্নয়ন মেলায় রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পে বিভিন্ন এনজিও ও এনজিওর ৭৩ স্টল কাজ করছে। এর আগে ৪ মে এই চাকরি ও দক্ষতা উন্নয়ন মেলা অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে এটি পিছিয়ে গেছে।

শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios:

ধন্যবাদ আপনার সচেতন মন্তব্যের জন্য।