মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই, ২০১৯

পদ্মা সেতু নির্মাণে মাথা লাগবে- এটা কি আধে সত্যি, নাকি গুজব?


গতকাল সন্ধা ৬ গটিকার সময় উখিয়া উপজেলার, কোটবাজার, খুন্দাকার পাড়ার মধ্যে কুমিল্লা থেকে এসে ছোট একটি বাচ্চা দরে নিয়ে যেতে দেখে গ্রামের লোকেরা।

এই ছেলেটিকে রাত ১০.৩০ মিনিটের সময় কোটবাজার এয়ারটেল অফিস থেকে আইনের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

কিন্তু উখিয়া থানার পুলিশ তাকে পাগল বলে মনে করেন।

এটা কি আধে সত্যি, নাকি গুজব? এর আগে অত্র এলেকার জনগন তাকে ধরে কিছু প্রাথমিক জিজ্ঞাসা বাদ করেন। তাতে জানা য়ায় সে কুমিল্লার এক জন বাসিন্দা।


উখিয়া উপজেলার অন্তর্গত বৃহত্তম স্টেশন চত্বর কোটবাজারে থেকে ছেলেধরা সন্দেহে কুমিল্লার ১ যুবক আটক করে ছেলে সাধারন মানুষ তারপর তাকে জনগণের গণধোলাইর দেখতে দেওয়ার পরে উখিয়া থানা খবর দেয় পরিশেষে থানার পুলিশ এসে তাকে আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়


সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পদ্মা সেতু নির্মাণে মানুষের মাথা ও রক্ত লাগবে—এমন গুজব ছড়ানোর অভিযোগে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আটজনকে গ্রেফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পদ্মা সেতু নির্মাণে মানুষের মাথা ও রক্ত লাগবে—এমন গুজব ছড়ানোর অভিযোগে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আটজনকে গ্রেফতার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।


"পদ্মা সেতুর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিতর্ক সবসময়ই ছিল। কাজেই এর নির্মাণকাজ নানভাবে পন্ড করার চেষ্টা করে কোনো একটি মহল রাজনৈতিক ফায়দা আদায়ের চেষ্টা করতেই পারে; বিশেষ করে যখন আমাদের দেশের মানুষের মধ্যে সব বিষয়কে কেন্দ্র করেই বাজে রাজনৈতিক লড়াই তৈরি করার প্রবণতা রয়েছে।"

"কথিত আছে, ১৫৮০ সালের দিকে মৌলভীবাজারে কমলার দীঘি তৈরি করার সময় দীঘিতে যখন পানি উঠছিল না, তখন রাজা স্বপ্ন দেখেন যে তার স্ত্রী দীঘিতে আত্মবিসর্জন দিলে পানি উঠবে এবং পরবর্তীতে রাজার স্ত্রী আত্মাহুতি দেয়ার ফলেই ঐ দীঘিতে পানি ওঠে।"

এসব কথা কি আদৌ সত্যি নাকি গুজব ছড়াচ্ছে দেশের মানুষেরা এবং ভাইরাল ফেসবুকে।

এটা কি আধে সত্যি, নাকি গুজব?



সমাধান: জনগণের কাছে তথ্যপ্রবাহকে অবারিত করা'

সুস্মিতা চক্রবর্তীর মতে, "এ ধরণের গুজব যেন না ছড়িয়ে পড়ে তা নিশ্চিত করার একমাত্র পদ্ধতি, ব্রিজ নির্মাণের খুঁটিনাটি বিষয় সম্পর্কে প্রকল্প পরিচালকের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষকে বিস্তারিত জানানো।"










"জনগণের কাছে তথ্যপ্রবাহকে যতটা অবারিত করা হবে, সাধারণ মানুষকে ধোঁয়াশা থেকে মুক্ত করার জন্য যতবেশি প্রয়াস নেয়া হবে, ততই এধরণের গুজব তৈরি হওয়া এবং ছড়িয়ে পড়া কমবে।"

এছাড়া বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে সব বিষয়েই রাজনৈতিকভাবে প্রভাবিত হওয়ার প্রবণতা থাকার কারণেও এধরণের গুজব তৈরি হয় বলে মনে করেন মিজ. চক্রবর্তী।

"পদ্মা সেতুর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিতর্ক সবসময়ই ছিল। কাজেই এর নির্মাণকাজ নানভাবে পন্ড করার চেষ্টা করে কোনো একটি মহল রাজনৈতিক ফায়দা আদায়ের চেষ্টা করতেই পারে; বিশেষ করে যখন আমাদের দেশের মানুষের মধ্যে সব বিষয়কে কেন্দ্র করেই বাজে রাজনৈতিক লড়াই তৈরি করার প্রবণতা রয়েছে।"




শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios:

ধন্যবাদ আপনার সচেতন মন্তব্যের জন্য।