বুধবার, ২১ আগস্ট, ২০১৯

যশোরে বিদ্যুতের খুটিতে ঝুলছে লাইনম্যানের লাশ>> SSTV Bangla


যশোর শহরের খোলাডাঙ্গার আয়েশা-আবেদ ফাউন্ডেশনের সামনে থেকে ১১ হাজারের ভোল্টেজের তার থেকে বিদ্যুৎ বিভাগের লাইনম্যান জালাল ফকিরের (৪১) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।



আজ মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে ফায়ার সার্ভিস ও বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন লাশ উদ্ধার করে। জালাল ফকির যশোর বিদ্যুৎ বিভাগ-১ এর লাইনম্যান এ চাকুরি করতেন। তিনি নেত্রকোনা জেলার হালিম ফকিরের ছেলে।বিদ্যুৎ বিভাগের সাব ডিভিশনের ইঞ্জিনিয়ার রবিউল করিম জানান, আজ মঙ্গলবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে আয়েশা আবেদফাউন্ডেশনের সামনে ১১ হাজার ভোল্টেজের তার সংযোগ ঠিক করছিলেন। লাইনম্যান জালাল ফকির লাইনের সুইচ অফ করার আগেই তিনি তারে হাত দেন। এসময় বিদ্যুতায়িত হন। 

যশোর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা জালাল ফকিরের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে যশোরজেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের নিয়ে যায়।জরুরী বিভাগের ডাক্তার আহমেদ তারেক সামস বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছেবর্তমানে কোচিং ক্যারিয়ারে ব্যস্ত সময় পার করছেন ক্রিকেটের সোনালী যুগ পার করে আসা শ্রীলঙ্কার সাবেক পেসার ছামিন্থা ভাস। 



দেশটির ইমার্জিং দলের প্রধান কোচ হিসাবে বাংলাদেশ সফরে এসেছেন তিনি। তার অধীনে শীর্ষরা প্রথম দিনেই বাজিমাত দেখায় লঙ্কান দল। বাংলাদেশের বিপক্ষে ১৮৬ রানে জয় পায়।বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের সঙ্গে লঙ্কানদের দ্বিতীয় ম্যাচ শুরু হবে ২১ আগস্ট। তবে তার আগে আজ মঙ্গলবার মিরপুর শের-ই-বাংলা একাডেমি মাঠে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন ভাস।এ সময় তিনি বলেন, ‘আপনি বলতে পারেন না স্বাগতিকরা খুব বেশি খারাপ খেলেছে। একটি ম্যাচে যেকোনো দলেরই অমন হতে পারে। তবে আমার ধারণা এবং আমি নিশ্চিত, স্বাগতিক তরুণরা ঠিক ঘুরে দাঁড়াতে পারে। কাজেই আমার ছেলেরা মোটেই বাংলাদেশ ইমার্জিং দলকে হালকাভাবে নিচ্ছে না। মাঠের সেরা দলই জিতবে সিরিজ।’



তাহলে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের ঘাটতিটা কোথায়? কোন জায়গাটিতেই উন্নতি করতে হবে? জবাবে ভাস বলেন, ‘আমি দেখেছি বাংলাদেশ দলে বেশ কিছু ট্যালেন্টেড ক্রিকেটার আছে। তাদের স্কিলও ভালো। তবে তাদের ফিটনেস বাড়াতে হবে। এটা যে বাংলাদেশের ছেলেদের কথা বলছি, তা নয়। লঙ্কানদের জন্যও একই কথা প্রযোজ্য। ছেলেরা বয়সে নবীন। ২১-২২ বছর বয়স। তাদের প্রত্যেকের ফিটনেস লেভেলটা উন্নত করা খুব প্রয়োজন। ফিটনেস না থাকলে আপনার স্কিল কোনো কাজে আসবে না।’

শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios:

ধন্যবাদ আপনার সচেতন মন্তব্যের জন্য।