শুক্রবার, ৯ আগস্ট, ২০১৯

ধর্মের দিকে ঝোঁকায় তুরস্কের শিক্ষাব্যবস্থায় ধস নামার অভিযোগ>> ‍SSTV Bangla

ধর্মের দিকে ঝোঁকায় তুরস্কের শিক্ষাব্যবস্থায় ধস নেমেছে। কয়েক সপ্তাহ আগেই তুরস্কের শিক্ষা মন্ত্রণালয় দেশের শিক্ষার্থীদের অবস্থা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। যার ফল ছিল ভয়াবহ৷ বেশিরভাগ শিক্ষার্থীই যথার্থ ভূমিকা রাখতে পারছেন না৷





বিশেষজ্ঞরা এই অবস্থার দায় চাপাচ্ছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রেসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান সরকারের শিক্ষানীতিকে।

সম্প্রতি কিছুদিনের ব্যবধানে, তুরস্কজুড়ে শতশত ইমাম হাতিপ স্কুল প্রতিষ্ঠা করেছে তুরস্ক৷ এরদোয়ান-বিরোধীদের দাবি, এই স্কুলগুলোই শিক্ষার্থীদের নাজুক অবস্থার জন্য দায়ী৷

ওই স্কুলগুলোতে মূলত জোর দেওয়া হয় কোরআন ও মহানবী হযরত মোহাম্মদের শিক্ষার ওপর৷ শুরুতে শুধু ইমামদের শিক্ষা দেওয়ার জন্য স্কুলগুলো চালু করা হলেও রক্ষণশীল ইসলামিক দল একেপি এই স্কুলগুলোকে সাধারণের মধ্যেও ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে৷





এই উদ্যোগের ফলে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে স্কুলগুলো সমগ্র তুরস্কজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে৷ দেশটির জাতীয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, ইমাম হাতিপ গ্রামার স্কুলের সংখ্যা ৫ বছরে বেড়ে ৫৩৭ থেকে দাঁড়িয়েছে ১৬০৫ তে৷ বর্তমানে এসব প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করছে ৬ লাখ ২০ হাজার শিক্ষার্থী৷

স্কুলগুলোকে সুবিধা দিতে রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন স্কুলেও আনা হয়েছে পরিবর্তন৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শিক্ষার্থী বা অভিভাবকদের সঙ্গে আলোচনাও করা হয়নি৷ অধিকাংশ স্কুলে ধর্মীয় ও সাধারণ, এই দুইভাগে আলাদা সেশন চালু করা হয়েছে৷





সরকারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া অনেক অভিভাবকদের অভিযোগ, যারা ধর্মীয় শিক্ষার দিকে যেতে চায় না, তাদের জন্য সমান সুযোগ রাখা হচ্ছে না৷ ধর্মীয় অংশের ক্লাসরুমগুলো ভালো, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন এবং বেতনও রাখা হয়েছে কম৷

সমালোচকেরা শিক্ষাব্যবস্থার এই হঠাৎ পরিবর্তনের কারণেই শিক্ষার্থীদের পারফরম্যান্সে ধস নেমেছে বলে মনে করছেন৷ উচ্চশিক্ষা লাভের জন্য তুরস্কের শিক্ষার্থীদের টার্কিশ সেন্ট্রাল এগজাম পাস করতে হয়৷ ইমাম হাতিপ স্কুলগুলো থেকে আসা শিক্ষার্থীদের অধিকাংশই এই পরীক্ষায় খারাপ ফল করে৷





তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান নিজেও ১৯৬০ সালের দিকে ইস্তানবুলের ইমাম হাতিপ স্কুলে পড়াশোনা করেছেন৷ তখন এধরনের স্কুলের সংখ্যা খুব কম ছিল৷ কিন্তু ক্ষমতায় আসার পর থেকে এই স্কুলকে মূলধারার স্কুলে পরিণত করার উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি৷

আর স্কুলগুলোর শিক্ষাব্যবস্থায় হস্তক্ষেপ করে এরদোগান একটি রক্ষণশীল প্রজন্ম গড়ে তোলার দিকেই বেশি মনোযোগ দিয়েছেন বলে অভিযোগ সমালোচকদের৷

শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios:

ধন্যবাদ আপনার সচেতন মন্তব্যের জন্য।