রবিবার, ১১ আগস্ট, ২০১৯

ধর্মান্তর বন্ধে বিল নিয়ে আসছে মোদী সরকার>> SSTV Bangla





রাজ্যসভায় পর্যাপ্ত সংখ্যা না থাকা সত্ত্বেও বিরোধী শিবিরে ভাঙন ধরিয়ে অনায়াসে তিন তালাক বিল আর কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার ও রাজ্য পুনর্গঠন বিল দু’টি পাশ করিয়ে নিয়েছে মোদী সরকার। সেই সাফল্যে উজ্জীবিত হয়ে এ বার ধর্মান্তরকরণ বিরোধী আইন আনার পরিকল্পনা নিয়েছে তারা। মূলত হিন্দুদের ধর্মান্তর রোখা ও ‘লাভ জেহাদ’-এর মতো ঘটনা আটকাতেই ওই বিল আনতে চাওয়া হচ্ছে। যা সঙ্ঘ পরিবারের দীর্ঘদিনের দাবি।





সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে বিলটি আনার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। সরকারের শীর্ষ সূত্র আজ বলেছে, এখনও জোর করে, প্রলোভন দেখিয়ে ধর্মান্তরণ ঘটে চলেছে। আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় যার সংখ্যা খুব বেশি। বিজেপির নেতাদের একাংশের দাবি, ভালবাসার নামেও পরিকল্পিত ভাবে হিন্দু মেয়েদের ধর্ম পরিবর্তন করা হচ্ছে। সেটাকেই ‘লাভ জেহাদ’ বলছেন তাঁরা। যদিও বিরোধীদের দাবি, এক জন প্রাপ্তবয়স্ক কোন ধর্মে বিয়ে করবেন বা কোন ধর্ম গ্রহণ করবেন, সেটা তাঁর মৌলিক অধিকার। তৃণমূলের এক নেতার কথায়, ‘‘বিলটি না আসা পর্যন্ত কিছু বলা সম্ভব নয়। তবে বোঝাই যাচ্ছে নির্দিষ্ট একটি ভোটব্যাঙ্ককে বার্তা দেওয়াই লক্ষ্য।’’




বিজেপির দাবি, স্বাধীনতার সময়ে দেশে ৯০% হিন্দু ছিল। এখন তা ৭২-৭৩%। যদিও জনগণনার নথি বলছে ১৯৫১ সালে এ দেশে হিন্দুর সংখ্যা ছিল ৮৪%। ২০১১ সালে তা কমে হয়েছে ৭৯.৮০%। পরিবার পরিকল্পনাই যার মূল কারণ বলে মনে করেন বিরোধীরা। বিজেপির  অবশ্য বক্তব্য, ধর্ম পরিবর্তনও সমান ভাবে দায়ী। মোদী সরকারের প্রথম পর্বে তাই ‘ঘর ওয়াপসি’ প্রকল্প হাতে নিয়েছিল গেরুয়া শিবির। বিরোধীরা অভিযোগ করেছিলেন, যখন কোনও হিন্দু অন্য ধর্ম গ্রহণ করছেন, তাকে বলা হচ্ছে ধর্মান্তরণ।


কিন্তু সঙ্ঘ পরিবার যখন কাউকে হিন্দুধর্মের ছাতায় নিয়ে আসছে, তখন তা ঘর ওয়াপসি! এ বার ধর্মান্তরণ পাকাপাকি রুখতেই বিল আনার কথা ভাবনা। অখিল ভারতীয় সন্ত সমিতির কর্তা স্বামী জিতেন্দ্রানন্দ সরস্বতী বলেন, ‘‘আমরা চাই সরকার দ্রুত আইন করুক। হিন্দু সমাজের স্বার্থেই তা প্রয়োজন।

শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios:

ধন্যবাদ আপনার সচেতন মন্তব্যের জন্য।