রবিবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

১৯ লাখ মানুষকে বাংলাদেশে ঢুকানোর অপচেষ্টা করতে পারে ভারত


ভারতের উত্তর–পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের চূড়ান্ত জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) থেকে বাদ পড়েছেন প্রায় ১৯ লাখ ৬ হাজার ৬৫৭ জন মানুষ। এ বিষয়ে সরকারকে সতর্ক করে বক্তব্য দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল।আজ শনিবার (৩১ আগস্ট) নিজের ফেসবুক পেইজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি। তার স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে দলা হলো-‘আসামে নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়ল ১৯ লাখ মানুষ। সেটা আরো বাড়তে পারে বা কমতে পারে।





 এদের অনেককে জোর করে বা মানবেতর পরিস্থিতিতে রেখে বাংলাদেশে ঢুকিয়ে দেয়ার অপচেষ্টা করতে পারে ভারত। এই চাপ মাথার উপর ঝুলিয়ে রেখে বাংলাদেশ থেকে আরো নানান একতরফা সুবিধা নেয়ার চেষ্টা হতে পারে।ভারত এমন কিছু করলে সরকারকে শক্ত থাকতে হবে। সরকারকে বুঝতে হবে দেশের স্বার্থ্ বোঝে বাংলাদেশের মানুষ। দেশের জন্য শক্ত অবস্থান নিলে দল মত নির্বিশেষে সবাই থাকবে সরকারের পক্ষে। সরকারকে তাই স্পষ্টভাবে বলতে হবে ১৯ লাখ বা ভারতের কোন অধিবাসীর দায় বাংলাদেশ নেবে না।





সুনামগঞ্জে কিশোরদের বখাটেপনা নিয়ন্ত্রণ করতে রাত ৯টার মধ্যে সড়কের পাশে এবং বিভিন্ন গলিতে থাকা ভাসমান চায়ের দোকান রাত ৯টার মধ্যে বন্ধ করার নির্দেশনা দিয়েছেন পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বিপিএম।তিনি আরো বলেন, উঠতি বয়সের কিশোররা পড়ালেখা বাদ দিয়ে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে অনেক রাত পর্যন্ত আড্ডা দেয়। এসময় অনেকেই বখাটে পনায় জড়িয়ে পড়ে। এজন্য রাত ৯টার মধ্যে সব চায়ের দোকান বন্ধ করতে হবে। 





শুধু বাস স্ট্যান্ড ও লোক সমাগম এলাকা বাদ দিয়ে বাকি অলিতে-গলিতে যে চায়ের দোকান বা টং রয়েছে সেগুলো বন্ধ করে দিতে হবে।শনিবার (৩১ আগস্ট) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সুনামগঞ্জ রিপোর্টাস ইউনিটির সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমি সুনামগঞ্জ আসার পর দেখেছি; এখানে চাঁদাবাজি, জুয়া খেলা, উঠতি ছেলেদের রাতভর আড্ডা ইত্যাদি হচ্ছে। কিন্তু আমি এখন পরিষ্কার বলে দিতে চাই; আমার জেলায় এসব হবে না। আমি চাঁদাবাজি বা জুয়া খেলা কিংবা কোনো রকম অপরাধমূলক কাজ মেনে নেব না। সুনামগঞ্জ জেলা থাকবে মাদক ও দুর্নীতিমুক্ত।





’পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, আইনের ঊর্ধ্বে আমরা কেউ না। সাংবাদিক ভাইদের বলবো, আপনারা গাড়িতে নম্বর প্লেট ও ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং হেলমেট ব্যবহার করবেন।এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হায়তুন নবী, সুনামগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি লতিফুর রহমান রাজু, সহ-সভাপতি মাছুম হেলাল, সাধারণ সম্পাদক এমরানুল হক চৌধুরী, কার্যনির্বাহী সদস্য হিমাদ্রি শেখর ভদ্র, সেলিম আহমদ তালুকদার প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios:

ধন্যবাদ আপনার সচেতন মন্তব্যের জন্য।