সোমবার, ৭ অক্টোবর, ২০১৯

আবরার হ`ত্যাকাণ্ড সিসিটিভি ভিডিও প্রকাশ


বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ (২১) হ`ত্যার ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতাসহ ৯ জনকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের মধ্যে চারজন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগ নেতা বলে জানা গেছে। এই হত্যাকাণ্ডে মোট ১৪ জনকে সন্দেহ করা হয়েছে।পুলিশ বলছে সিসি টিভির ফুটেজ দেখে এই ৯জনকে আটক করা হয়েছে। অন্যদিকে সিসিটিভির ভিডিওটি স্যোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়।আটককৃ`তরা

হলেন, বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফুয়াদ হোসেন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার এবং ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন। এদের মধ্যে রাসেল ও ফুয়াদকে সোমবার সকালে এবং অনিক ও জিয়নকে দুপুরে আটক করা হয়।ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) যুগ্ম কমিশনার আবদুল বাতেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সোমবার বেলা সাড়ে





তিনটার দিকে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শের-ই বাংলা হলে গিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আবরার ফাহাদ হ`ত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ছয়জনকে আটক করা হয়েছে। তবে তিনি ছয়জনের নাম সুনির্দিষ্ট করে বলেননি।সহপাঠীদের অভিযোগ, রোববার রাত আটটার দিকে শেরে বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষ থেকে কয়েকজন আবরারকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর রাত দুইটা পর্যন্ত তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাদের ধারণা, ২০১১ নম্বর রুমে নিয়ে তাকে পেটানো হয়।হল শাখা ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, আবরারকে জেরা ও পেটানোর সময় ২০১১ নম্বর কক্ষে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের উপ-আইন বিষয়ক সম্পাদক অমিত সাহা, মুজতাবা রাফিদ, ইফতি মোশারফ ওরফে





সকালসহ তৃতীয় বর্ষের আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী ছিলেন৷ ওই কক্ষে এসে দ্বিতীয় দফায় আবরারকে পেটান বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী অনিক সরকার, ক্রীড়া সম্পাদক ও নেভাল আর্কিটেকচার অ্যান্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের একই বর্ষের মেফতাহুল ইসলাম জিয়নসহ কয়েকজন৷ তারা সবাই বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেলের অনুসারী।আবরার ফাহাদ বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের (ইইই) বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীছিলেন। শেরে বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন তিনি। 

শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios:

ধন্যবাদ আপনার সচেতন মন্তব্যের জন্য।